MysmsBD.ComLogin Sign Up

[Trick] Uc Browser দিচ্ছে ৪০০০টাকা করে বিকাশে। বাংলাদেশ থেকে প্রথম থেকে ৪০০০ জন পাবে ৪০০০ টাকা করে ।

২০১৮ সালেই ফিরছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ!

In ক্রিকেট দুনিয়া - May 26 at 9:53pm
২০১৮ সালেই ফিরছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ!

দুই বছর পরপরই আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা; কিন্তু আইসিসির সম্প্রচার স্বত্ব ক্রয়কারী প্রতিষ্ঠান স্টার স্পোর্টসের সঙ্গে চুক্তির কারণে ২ বছরের পরিবর্তে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপও চার বছর পর পর আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়ে গেছে আরও আগেই। তবে সদ্য সমাপ্ত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ব্যাপক সাফল্য আবারও আইসিসিকে উদ্বুদ্ধ করেছে দুই বছর পর পর এই আসরটি আয়োজনের।

আগে নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী আগামি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ২০২০ সালে। তবে আইসিসি পরিকল্পনা করছে, দুই বছর পর আবারও ২০১৮ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপকে ফিরিয়ে আনার। এ লক্ষ্যে টিভি সম্প্রচার স্বত্ব প্রতিষ্ঠান স্টার স্পোর্টসেরও দ্বারস্থ হয়েছে আইসিসির শীর্ষ কর্মকর্তারা।

ইএসপিএন ক্রিকইনফো জানাচ্ছে, ২০১৮ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ আয়োজনের জন্য স্টার স্পোর্টসকে রাজি করাতে আজই তাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছে আইসিসি শীর্ষ কয়েকজন কর্মকর্তা। শুধু তাই নয়, ২০১৮ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ভেন্যু হিসেবে দক্ষিণ আফ্রিকাকেও প্রাথমিকভাবে নির্বাচন করে ফেলেছে আইসিসি। যদিও আন্তর্জাতিক কোন আসর আয়োজনের আবেদন করার ওপর দক্ষিণ আফ্রিকা সরকারের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে ক্রিকেট বোর্ডের ওপর। তবে আইসিসি মনে করছে, এর মধ্য দিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা সরকারের ওপর একটা চাপও দেয়া যাবে।

স্টার স্পোর্টসের সঙ্গে সম্প্রচার চুক্তির শর্ত অনুযায়ী আগামী ২০২০ সালেই পরবর্তী আইসিসি টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। সেভাবে স্টার স্পোর্টসও তাদের সূচিগুলো নির্ধারণ করে রেখেছে। এখন আইসিসির নতুন পরিকল্পনা যদি বাস্তবায়ন করতে হয়, তাহলে চুক্তির বাইরে ২০১৮ এবং ২০২২ সালের বিশ্বকাপ যুক্ত হবে এর মধ্যে। এই দুটি বিশ্বকাপ তারা নতুন করে কিনবে কি না, অন্য কোন পন্থা বের করা হবে- সেটা আলোচনার জন্য স্টার স্পোর্টসের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলো আইসিসি কর্মকর্তারা।

আইসিসি আবার এটাও বিবেচনায় আনছে যে, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সুপার টেনের সঙ্গে আরও দুটি দল যুক্ত করে সুপার টুয়েলভ কিংবা ১২ দলের চূড়ান্ত পর্ব আয়োজন করা যায় কি না, সেটা। এতে করে আইসিসি সহযোগি দেশগুলো সুযোগ কম পাওয়ার যে অভিযোগ তুলছে, তাদের দাবিদাওয়াকেও অনেকটা গুরুত্ব দেয়া হবে এতে করে।

আইসিসি আশা করছে, তারা স্টার স্পোর্টসকে নতুন প্রস্তাবের বিষয়ে রাজি করাতে পারবে। কারণ, সদ্য সমাপ্ত টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টে ভারতের সেমিফাইনাল ম্যাচটিই দেখেছে ৮ কোটিরও বেশি মানুষ। এছাড়া পাকিস্তান ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচটিও প্রচুর টিভি দর্শক দেখেছে।

সব মিলিয়ে পুরো টুর্নামেন্ট অনলাইন ভিডিওতেই দেখেছে প্রায় ৭৫ কোটি মানুষ। অথচ, ২০১৫ ওয়ানডে বিশ্বকাপ অনলাইন ভিডিওতে দেখেছে ২৫ কোটি মানুষ। এই সাফল্যে উদ্বুদ্ধ হয়েই আইসিসি নতুন করে ২ বছর পর পর বিশ্বকাপ আয়োজনের চিন্তা-ভাবনা করছে।

২০১৮ এবং ২০২২ বিশ্বকাপ যদি চূড়ান্ত হয় তাহলে সময়সূচি নিয়ে তৈরী হবে জটিলতা। এখন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ তো আয়োজন হয় ফেব্রুয়ারি-মার্চে। তবে, আইসিসি সূচির কথা চিন্তা করে সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে শুরু করে অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে টুর্নামেন্ট শেষ করার চিন্তা করছে। কারণ তখন তিন সপ্তাহ সময় নির্ধারণ করা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ টি-টোয়েন্টির জন্য। তবে, সম্প্রচার প্রতিষ্ঠানের জন্য জটিলতা রয়েছে আইপিএল নিয়েও। কারণ, আইসিসি আলাদাভাবে কোন টি-টোয়েন্টি আসর আয়োজন করলে আইপিএলের জনপ্রিয়তা কমে যাওয়ারও সম্ভাবনা রয়েছে।

দক্ষিণ আফ্রিকাছাড়াও বিকল্প ভেন্যুর তালিকায় রয়েছে আরব আমিরাত। কারণ, ম্যাচের সময়সূচি নির্ধারণ করতে গেলে আরব আমিরাতের সময়ের সঙ্গে ভারতীয় উপমহাদেশের সঙ্গে অনেকটাই মিলে যাবে। তারওপর, আরব আমিরাত টুর্নামেন্ট আয়োজন করার জন্য যে কোন সময় ফাঁকা পাওয়া যাবে। তবে, দক্ষিণ আফ্রিকাই প্রথম পছন্দের। কারণ, ২০০৯ সালে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি আয়োজনের পর তারা আর কোন আইসিসি ইভেন্ট আয়োজন করেনি।

[Trick] Uc Browser দিচ্ছে ৪০০০ টাকা করে বিকাশে। বাংলাদেশ থেকে প্রথম থেকে ৪০০০ জন পাবে ৪০০০ টাকা করে ।

Googleplus Pint
Mizu Ahmed
Posts 3971
Post Views 619