MysmsBD.ComLogin Sign Up

কুমিল্লা টেস্টের মতো ব্যাটিং করেছে!

In ক্রিকেট দুনিয়া - Nov 18 at 11:17pm
কুমিল্লা টেস্টের মতো ব্যাটিং করেছে!

কয়েক ঘণ্টা আগের ম্যাচটিতেই একরকম রানের বন্যা বইয়ে গেছে। চিটাগং ভাইকিংস ও রাজশাহী কিংসের মধ্যকার ওই ম্যাচে রান হয়েছে মোট ৩৬১। একই মাঠে, একই উইকেটে পরের ম্যাচে রান হলো মোটে ২৪৮। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের করা ১২২ রান রংপুর টপকে গেল ১৮ বল আর ৯ উইকেট হাতে রেখে। তাতে কুমিল্লা হারল টানা পাঁচ ম্যাচ।

যে উইকেটে চিটাগং-রাজশাহীর ব্যাটসম্যানরা রানের বন্যা বইয়ে দিলেন, সেই উইকেটেই কুমিল্লার ব্যাটসম্যানরা রানের জন্য এত লড়াই করল কেন? অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা মনে করেন, তার দলের ব্যাটসম্যানরা টেস্ট ম্যাচের মতো ব্যাটিং করেছে!

ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে মাশরাফি বলেন, ‘টেস্ট ম্যাচের মতো ব্যাটিং করলে লো স্কোরিং তো হবে, এটাই স্বাভাবিক। দিনের বেলায় দেখে মনে হচ্ছিল, রাতের বেলা এই উইকেটে দুই’শ করা সহজ হবে। আমাদের বোলিং ভালো হয়েছে, এটা মনে করার কোনো কারণ নেই। আসলে এটা না। ওদের তো আসলে কোনো চাপ ছিল না। ওরা আরামে ম্যাচটি বের করে নিয়ে গেছে।’

হাতে উইকেট রেখেও বড় সংগ্রহ গড়তে পারেনি কুমিল্লা। ১০ ওভার শেষে তাদের সংগ্রহ ছিল ২ উইকেটে ৪১। ৩ উইকেট হারিয়ে পরের ১০ ওভারে তারা তুলতে পারে ৮১ রান। হাতে পাঁচ উইকেট ছিলই। উইকেট হাতে রেখেও বড় স্কোর গড়তে না পারার কারণেই টেস্ট ম্যাচ বলছেন মাশরাফি, ‘টেস্ট ব্যাটিং বলছি এই কারণে। আমাদের হাতে যখন আট উইকেট তারপর হাতখুলে মারা উচিত ছিল। ১০ ওভার শেষে আমাদের রান ৪৬ (৪১)। তখন অবশ্যই আমাদের অলআউট খেলা উচিত ছিল। কারণ আমাদের মাথায় যদি থাকে এই উইকেটে রাতে বল করা খুব কঠিন। ১৫০ রান না হলেও চান্স একেবারেই নেই। শেষ দশ ওভারে আমরা ১০০ রান নিতে পারলেও আমাদের স্কোর হতো ১৫০। আমি এ জন্য বলছি প্রথমে যেহেতু হয়নি। মাঝে আমাদের আরো অ্যাফোর্ট দেওয়া উচিত ছিল।’

পুঁজি কম ছিল বলে কি ব্যাটিংয়ের পরই হাল ছেড়ে দিয়েছিল কুমিল্লা? মাশরাফি বললেন, ‘অবশ্যই না। ব্যাটিংয়ের পর ছেড়ে দিয়েছি সেটা না। আমাদের দ্রুত ৩-৪টি উইকেট দরকার ছিল এই ম্যাচ জিততে হলে। ১৩০ আমরা বরিশালের বিপক্ষে করেছিলাম। ওটা আরো স্লো উইকেট ছিল। ওদের একপর্যায়ে দশ ওভারে ৪৫ ছিল। পরে উইকেট হাতে ছিল বলে ম্যাচ জিতে গিয়েছে। আমাদের দ্রুত উইকেট দরকার ছিল।’

তথ্যসূত্রঃ বিডিনিউজ২৪

Googleplus Pint
Anik Sutradhar
Posts 6739
Post Views 432