MysmsBD.ComLogin Sign Up

Search Unlimited Music, Videos And Download Free @ Tube Downloader

বাসায় এনে যৌনকর্মীকে খুনের পর ভিডিও ধারণ!

In আন্তর্জাতিক - Oct 26 at 6:10pm
বাসায় এনে যৌনকর্মীকে খুনের পর ভিডিও ধারণ!

পড়াশুনা করেছেন ক্যামব্রিজ ইউনিভার্সিটি থেকে। হয়েছেন ব্যাংক অব আমেরিকার শীর্ষ কর্মকর্তা। তবে মাদকাসক্ত জীবনে এ সম্মান সয়নি। প্রথমে ব্যাংক থেকে ইস্তফা দেন। পরে দুই যৌনকর্মীকে ঘরে এনে কয়েকবার ধর্ষণ করে নৃশংসভাবে হত্যা করে তার নগ্ন ভিডিও ধারণ করেন।

এমন নৃশংস ঘটনা ঘটেছে হংকংয়ে। হংকংয়ের নাগরিক রুরিক জুটিং নৃশংস এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছেন নিজের ফ্ল্যাটেই।

এ ঘটনার ভিডিও দেখে আঁতকে উঠেন খোদ বিচারপতিরাও।

জানা গেছে, হংকংয়ে নিজের ফ্ল্যাটে দুই যৌনকর্মীকে গলা কেটে খুন করার অপরাধে ব্যাংক অব আমেরিকার প্রাক্তন শীর্ষকর্তা রুরিক জুটিংকে ২০১৪ সালে গ্রেফতার করে পুলিশ। সুমার্তি নিংঘসি এবং জেসি লোরেনা নামে দুই যৌনকর্মীকে নৃশংস অত্যাচার করে ২০১৪ সালের অক্টোবর মাসে খুন করেছিল জুটিং। এর মধ্যে সুমার্তি নিংঘসি নামের ইন্দোনেশিয়ার বাসিন্দাকে খুন করার আগে তিন দিন ধরে তার উপর অত্যাচার চালিয়েছিল জুটিং।

খুনের আগে এবং পরে কোকেন সেবন করে গোটা পর্বের বিবরণ নিজের আইফোনে ভিডিও রেকর্ডিং করে রাখে এই অপরাধী। চার ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে ভিডিও রেকর্ডিং করে জুটিং। কীভাবে ওই যৌনকর্মীর উপরে সে নির্যাতন চালিয়েছিল, তার পুঙ্খানুপুঙ্খ বিবরণও নিজের ভিডিওতে ব্যাখ্যা করে। সেখানেই সে স্বীকার করে, খুন করার আগে সুমার্তিকে একাধিকবার ধর্ষণও করে।

এর কয়েকদিন পরেই জেসি লোরেনা নামে এক মহিলাকেও নিজের ফ্ল্যাটে গলা কেটে খুন করেছিল জুটিং। নিজের শ্যুট করা ভিডিওতে জুটিং স্বীকার করে, মানুষ হিসেবে নয়, নিংঘসিকে আসলে নিজের যৌন লালসা চরিতার্থ করার একটি বস্তু হিসেবে ব্যবহার করেছে সে। আবার রক্তে ভেসে যাওয়া সুমার্তির দেহের সামনে গিয়ে নিজেই বলে, ‘এরকম পরিণতি আমি চাইনি।’

গোটা ভিডিওটা এতটাই নৃশংস ছিল যে বিচারকরা অনেকেই তার পুরোটা দেখতে পারেননি। সুমার্তির উপরে বীভৎস অত্যাচার দেখে একজন বিচারক কেঁদেও ফেলেন। যে ভিডিওটি আদালতে দেখানো হয়, সেটি এতটাই বীভৎস ছিল যে নিজেও তা দেখতে পারেনি জুটিং। আদালতে উপস্থিত সাধারণ মানুষকেও এই ভিডিও দেখতে দেয়া হয়নি।

বীভৎস হত্যাকাণ্ডে অভিযুক্ত রুরিক জুটিংয়ের দাবি, পুরো ঘটনাটাই মাদকাসক্ত হয়ে ঘটিয়েছে সে। সচেতনভাবে দুই মহিলাকে খুন করেনি বলেই নিজেকে নিরপরাধ বলে দাবি করে জুটিং।

জুটিং অবশ্য স্বীকার করেছে, লন্ডনেও তিনজন স্কুলপড়ুয়া ছাত্রীকে অপহরণ করে যৌন নির্যাতন চালিয়েছিল সে।

হংকংয়ে ব্যাংক অব আমেরিকার প্রাক্তন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা জুটিংয়ের হাতে দুই মহিলার নৃশংস খুনে গোটা বিশ্বে সমালোচনা ঝড় উঠেছিল।

সূত্রঃ যুগান্তর

Googleplus Pint
Mizu Ahmed
Posts 3943
Post Views 745