MysmsBD.ComLogin Sign Up

শেষ মুহূর্তের রিয়াল-ঝলক

In ফুটবল দুনিয়া - Sep 16 at 6:31am
শেষ মুহূর্তের রিয়াল-ঝলক

যেন কোনো রহস্য উপন্যাস। ম্যাচের শেষ মুহূর্তটি পর্যন্ত টান টান উত্তেজনা, যার শেষটা হলো অনির্বচনীয় তৃপ্তিতে। জিনেদিন জিদানের হয়তো এখন তেমন অনুভূতিই হচ্ছে।

জানুয়ারিতে দায়িত্ব নিয়ে পাঁচ মাসের মধ্যেই চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতিয়েছেন রিয়াল মাদ্রিদকে। এবার তাঁর প্রথম পূর্ণ মৌসুম, তাতে চ্যাম্পিয়নস লিগের প্রথম ম্যাচেই জিদানের সামনে ছিল হোঁচট খাওয়ার শঙ্কা। ঘরের মাঠে ৮৮ মিনিট পর্যন্তও স্পোর্টিং ক্লাব ডি পর্তুগালের কাছে ১-০ গোলে পিছিয়ে রিয়াল! কিন্তু শেষ পর্যন্ত তৃপ্তি নিয়েই ফিরেছেন ফ্রেঞ্চ কিংবদন্তি। শেষ পাঁচ মিনিটের অবিশ্বাস্য নাটকীয়তায় উল্টো ২-১ গোলে জিতেছে রিয়াল।

শুরুটা দুর্দান্ত হলো ম্যানচেস্টার সিটিরও। পেপ গার্দিওলাকে ঘিরে ইউরোপের কুলীন হওয়ার স্বপ্ন দেখছে ক্লাবটি, যাত্রার শুরুটাও হলো স্বপ্নের মতো। সার্জিও আগুয়েরোর হ্যাটট্রিকে ঘরের মাঠে বরুসিয়া মনশেনগ্লাডবাখকে ৪-০ গোলে হারিয়েছে সিটিজেনরা। বড় জয় পেয়েছে বরুসিয়া ডর্টমুন্ডও। লেগিয়া ওয়ারশকে ৬-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে টমাস টুখেলের দল।

চ্যাম্পিয়নস লিগের দ্বিতীয় দিনে নয় ম্যাচের মধ্যে সবচেয়ে আলোচিত গল্প নিশ্চিতভাবেই রিয়ালের প্রত্যাবর্তনের। গল্পের নায়ক? ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। ম্যাচটা তাঁর শৈশবের ক্লাবের বিপক্ষে, ম্যাচের আগে আলো তাই পর্তুগিজ ফরোয়ার্ডের ওপরই ছিল। ম্যাচ শেষেও আলোটা নিজের দিকেই রাখলেন রোনালদো। দল পিছিয়ে, নির্ধারিত সময়ের বাকি আর ২ মিনিট—এমন সময় ফ্রি-কিক থেকে করলেন দুর্দান্ত গোল। যাতে হলো একটা রেকর্ডও, চ্যাম্পিয়নস লিগে ফ্রি-কিক থেকে সবচেয়ে বেশি গোল এখন তাঁর (১২)।

তবে এমন মাহাত্ম্যপূর্ণ গোলের পরও রোনালদো উল্টো দুহাত জোড় করে ক্ষমা চেয়ে নিলেন। চাওয়ারই কথা, স্পোর্টিংকে তিনি কী করে ভোলেন? ম্যাচ শেষে বললেনও, ‘উদ্যাপন করা আমার পক্ষে সম্ভব ছিল না। আমি আজ যা, সেটি এই ক্লাবটির কারণেই। ওদের আমি অনেক সম্মান করি। ওরা সব সময়ই আমার হৃদয়ে থাকবে।’

৪৭ মিনিটে ব্রুনো সিজারের গোলে পিছিয়ে পড়ার পর রোনালদোর গোলে সমতা। রিয়ালের রাতটা পূর্ণতা পেল যোগ করা সময়ের পঞ্চম মিনিটে, হামেস রদ্রিগেজের দুর্দান্ত ক্রসে হেড করে জিদানের দলকে জিতিয়ে দিলেন আলভারো মোরাতা। রোমাঞ্চটা ম্যাচ শেষেও ছিল রিয়াল কোচ জিদানের কণ্ঠে, ‘এটাই রিয়াল মাদ্রিদ এবং আমরা জানি মিনিটের মধ্যেই আমরা ম্যাচের অবস্থা বদলে দিতে পারি। খেলোয়াড়েরা দুর্দান্ত চেষ্টা করেছে, সেটার ফলও পেয়েছি।’

রিয়ালের ম্যাচে ছিল রোমাঞ্চ, আর ম্যানচেস্টার সিটির পারফরম্যান্স ছড়িয়েছে মুগ্ধতা। ধীরে ধীরে যেন ‘গার্দিওলার দল’ হয়ে উঠছে ম্যানচেস্টারের নব্য ধনী ক্লাবটি। দ্রুতলয়ের পাসিং, খেলোয়াড়দের জায়গা বদল করে নেওয়া, বল হারালে তা প্রতিপক্ষের পা থেকে কেড়ে নেওয়া...গার্দিওলাকে ঘিরে এমন দিনেরই তো স্বপ্ন দেখছিল সিটি। দুর্দান্ত পারফরম্যান্সটা পরিণতি পেয়েছে সার্জিও আগুয়েরোর পায়ে। আগের রাতে গ্রুপের অন্য ম্যাচে বার্সেলোনার ৭-০ গোলের জয়ে হ্যাটট্রিক করেছেন লিওনেল মেসি, সেটিরই যেন জবাব দিলেন ‘বন্ধু’ আগুয়েরো। সিটির অন্য গোলটি কেলেশি ইহিয়ানাচোর।

বড় জয়ের হাসি ডর্টমুন্ডেরও। বায়ার্ন ছেড়ে ‘ঘরে’ ফেরার পর প্রথম গোল পেয়েছেন ডর্টমুন্ডের একাডেমিতেই বেড়ে ওঠা মারিও গোটশে, ডর্টমুন্ডও ফিরেছে চ্যাম্পিয়নস লিগের ইতিহাসে অ্যাওয়ে ম্যাচে নিজেদের সবচেয়ে বড় জয়ের গর্ব নিয়ে। গ্রুপের পরের ম্যাচ রিয়ালের সঙ্গে, একটা হুঁশিয়ারিও কি দিয়ে রাখল টুখেলের দল? রয়টার্স, এএফপি।

Googleplus Pint
Roney Khan
Posts 819
Post Views 181