MysmsBD.ComLogin Sign Up

বিদায় বলছেন সারওয়ান

In ক্রিকেট দুনিয়া - Sep 15 at 4:19pm
বিদায় বলছেন সারওয়ান

রামনরেশ সারওয়ান সবশেষ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলেছেন ২০১৩ আইসিসি চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে ওভালে ভারতের বিপক্ষে।

এরপর আর ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলে ডাক পাননি। ডাক পাওয়ার সম্ভাবনাও খুব একটা নেই। এবার তাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় বলতে যাচ্ছেন সারওয়ান।

গায়ানায় আজ আনুষ্ঠানিকভাবে অবসরের ঘোষণা দেওয়ার কথা ৩৬ বছর বয়সি ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যানের।

১৯৯৫-৯৬ মৌসুমে গায়ানার হয়ে বার্বাডোজের বিপক্ষে মাত্র ১৫ বছর বয়সেই প্রথম শ্রেনির ক্রিকেটে অভিষেক হয়েছিল সারওয়ানের। এর চার বছর পর ব্রিজটাউনে পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট অভিষেক। অভিষেক টেস্টে দুই ইনিংসেই ছিলেন অপরাজিত (৮৪ ও ১১)। প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি পেয়েছিলেন নিজের ২৮তম টেস্ট, ২০০২ সালে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে বাংলাদেশের বিপক্ষে।

তার সেরা পারফরম্যান্স আসে ২০০৩ সালের মে মাসে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে অ্যান্টিয়ায় সেই রেকর্ড গড়া টেস্টে। যেখানে তিনি পাঁচ নম্বরে নেমে খেলেন ১০৫ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস। টেস্ট ইতিহাসে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ৪১৮ রান তাড়া করে জয়ের বিশ্ব রেকর্ড গড়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। একই মৌসুমে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে চার ম্যাচের টেস্ট সিরিজে করেন ৩৯২ রান। যদিও ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজ হারে ৩-০ ব্যবধানে।

টেস্ট কারিয়ারে ৮৭ ম্যাচে ৪০.০১ গড়ে রান করেছেন ৫৮৪২। এর মধ্যে তিন নেমে ৬০ ম্যাচে করেছেন ৪১৯৭, যা এই পজিশনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে তৃতীয় সর্বোচ্চ। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ক্যারিয়ার সেরা ২৯১ রানও আসে তিনে নেমেই, যা ভিভ রিচার্ডসের সঙ্গে যৌথভাবে সর্বোচ্চ। ১৫ সেঞ্চুরির ১৪টিই করেছেন তিন নেমে, যা রিচি রিচার্ডসনের সঙ্গে যৌথভাবে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ। সবশেষ টেস্ট ম্যাচটি খেলেন ২০১১ সালে বার্বাডোজে ভারতের বিপক্ষে।

ওয়ানডে অভিষেক হয়েছিল ২০০০ সালের জুলাইয়ে ইংল্যান্ড সফরে। ২০০২ সালে জমশেদপুরে তার অপরাজিত ৮৩ রান ভারতের বিপক্ষে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে শেষ বলে দারুণ এক জয় এনে দেয়। ২০০৪ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ন্যাটওয়েস্ট সিরিজ জেতাতেও রাখেন গুরুত্বপূর্ণ অবদান। একই বছর আইসিসি চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে চার ম্যাচে করেন টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৬৬ রান। ২০০৩, ২০০৭ ও ২০১১- তিন বিশ্বকাপে করেছেন ৭৩৯ রান। ২০০১ সালে ঘরের মাঠে ভারতের বিপক্ষে সিরিজের পর ওয়ানডে দলে জায়গা হারান।

১৮ মাস পর আবার ওয়ানডেতে ফিরেছিলেন ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজে। তবে তিন ম্যাচে ১২ রানের বেশি করতে পারেননি। তবে ফেব্রুয়ারিতে ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডেতে খেলেন ১২০ রানের অপরাজিত ইনিংস। কিন্তু বছরের শেষ দিকে ওয়ানডে দল থেকে আবার বাদ পড়েন। ১৮১ ওয়ানডেতে ৪২.৬৭ গড়ে দেশের পক্ষে সপ্তম সর্বোচ্চ ৫৮০৪ রান করেছেন। ৩৮টি ফিফটির সঙ্গে সেঞ্চুরি ৫টি। এ ছাড়া ২০০৭ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত ১৮টি টি-টোয়েন্টিতে দুই ফিফটিতে করেছেন ২৯৮ রান। চার টেস্ট, পাঁচ ওয়ানডে ও দুটি টি-টোয়েন্টিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে নেতৃত্বও দিয়েছেন।

তথ্যসূত্রঃ বিডিনিউজ২৪

Googleplus Pint
Anik Sutradhar
Posts 6972
Post Views 158