MysmsBD.ComLogin Sign Up

মুখে কাপড় চেপে ধরে ধর্ষণ, ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী অন্তঃসত্ত্বা

In দেশের খবর - Aug 08 at 9:54am
মুখে কাপড় চেপে ধরে ধর্ষণ, ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী অন্তঃসত্ত্বা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলায় ঘরে ঢুকে মুখে কাপড় চেপে ধরে ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণ করেছে সাদ্দাম হোসেন নামের এক লম্পট।

প্রায় আট মাস আগে এ ঘটনা ঘটলেও ধর্ষক প্রভাবশালী হওয়ায় বিচারের নামে সময় ক্ষেপন করতে থাকে গ্রামের মাতব্বররা। এর মধ্যে ওই ছাত্রী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে।

এদিকে বিচার না পেয়ে গত ৬ জুন ডাক্তারি পরীক্ষার পর ওই ছাত্রীর বাবা সাদ্দামকে আসামি করে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতে মামলা করেন।

এদিকে মামলা করায় স্থানীয় নেতারা তাদের হুমকি-ধামকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে ধর্ষিতা ও তার পরিবারের লোকজন। বর্তমানে উপজেলার বুড়িশ্বর ইউনিয়নে উভয় পরিবার পাশাপাশি বসবাস করছে।

ধর্ষিতার বাবা জানান, আসামিপক্ষ মামলা তুলে নিতে হুমকি দিচ্ছে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ঘটনার দিন শিশুটির বাবা-মা রোগী দেখতে পাশের গ্রামে যায়। খালি ঘরে সে ঘুমিয়ে পড়ে। এই সুযোগে ঘরে ঢুকে তার মুখে কাপড় চেপে ধরে ধর্ষণ করে প্রতিবেশী মো. শাহজাহান মিয়ার ছেলে নাসিরনগর ডিগ্রি মহাবিদ্যালয়ের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র মো. সাদ্দাম হোসেন।

শিশুটির বাবা-মা বাড়ি এসে ঘটনাটি জেনে বিচারের আসায় গ্রাম্য মাতব্বরদের কাছে যান। পরে উপজেলা চেয়ারম্যান এ টি এম মনিরুজ্জামান সরকারের বাড়িতে সালিশ বসে।

সালিশে উপজেলা চেয়ারম্যান ২৪ ডিসেম্বর উভয়ের মাঝে বিবাহের সিদ্বান্ত দেন। কিন্তু উপজেলা চেয়ারম্যানের নিকটাত্মীয় হওয়ায় তার নির্দেশে বিয়ে ভেঙ্গে সাদ্দাম পালিয়ে যায়।

এরপর ৬ জুন পরীক্ষার পর শিশুটি ছয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা বলে জানায় চিকিৎসকরা। নিরুপায় হয়ে ওই ছাত্রীর বাবা আদালতে মামলা দায়ের করেন।

আদালত মামলাটি তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের জন্য নাসিরনগর থানাকে নির্দেশ দেন।

উপজেলা চেয়ারম্যান এ টি এম মনিরুজ্জামান সরকারের মোবাইলফোনে বার বার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তার কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নাসিরনগর থানার এসআই মো. আব্দুল ওয়াহাব বলেন, 'উভয় পক্ষকে ডেকে উপজেলা চেয়ারম্যানের মাধ্যমে বিষয়টি সমাধানের জন্য বলেছি।'

তথ্যসূত্রঃ যুগান্তর

Googleplus Pint
Anik Sutradhar
Posts 6722
Post Views 516