MysmsBD.ComLogin Sign Up

আত্মবিশ্বাসী তাসকিন আহমেদ

In ক্রিকেট দুনিয়া - Jul 21 at 6:51pm
আত্মবিশ্বাসী তাসকিন আহমেদ

গত মার্চে ভারতের অনুষ্ঠিত টি২০ বিশ্বকাপের মাঝপথে অবৈধ বোলিং অ্যাকশনের দায় মাথায় নিয়ে দেশে ফিরে এসেছিলেন বাংলাদেশ দুই বোলার আরাফাত সানি ও তাসকিন আহমেদ। তাতে করে ওই আসরে বাংলাদেশের বোলিং আক্রমণ অনেকাংশে দুর্বল হয়ে পড়েছিল। তবে দেশে ফিরে গত এপ্রিলে ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগে আবাহনীর হয়ে খেলেছিলেন তাসকিন।

ঈদের আগে মাহবুল আলী জাকিরের তত্তাবধানে ডানহাতি পেসারের পুনর্বাসন প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল। ঈদের কারণে বেশকিছুদিন বিরতি ছিল এই পুনর্বাসন প্রক্রিয়া। আবার শুরু হয়েছে তাসকিনের বোলিং অ্যাকশন শুদ্ধ করার প্রক্রিয়া। আসন্ন ইংল্যান্ড সিরিজের আগে বোলিং অ্যাকশন পরীক্ষা দেয়ার জন্য সেভাবে তৈরি হচ্ছেন তাসকিন। আশা করছেন আন্তর্জাতিক সিরিজ ও সব ধরনের ক্রিকেট আবারো খেলার অনুমতি পাবেন তিনি।

ঈদের ছুটি থাকায় বেশকিছু দিন তাসকিনের বোলিং অ্যাকশন পুনর্বাসন প্রক্রিয়ার কাজ বন্ধ ছিল। বৃহস্পতিবার থেকে এই পুনর্বাসন প্রক্রিয়া আবার শুরু হয়েছে। অনুশীলন শেষে পরে সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হন তাসকিন আহমেদ। অবৈধ বোলিং অ্যাকশন প্রসঙ্গে ডানহাতি পেসারের কন্ঠে ঝরে পড়েছে আত্মবিশ্বাস।

এ প্রসঙ্গে তাসকিন বলেন, ‘বিশেষজ্ঞ কোচেরা আছেন। জাকি স্যার আমাকে দারুণ সহায়তা করছেন। সব মিলিয়ে কঠোর পরিশ্রম করছি। আমি ব্যক্তিগতভাবেও খুশি। অনেক উন্নতি হয়েছে। আশা করি দ্রুতই পরীক্ষা দিতে যেতে পারব। চেষ্টা করছি ইংল্যান্ড সিরিজের আগে পরীক্ষা দিতে। একই সঙ্গে আবার আন্তর্জাতিক সিরিজ ও সব ধরনের ক্রিকেট খেলার অনুমতি যাতে পাই। সেই চেষ্টা করছি।’

বৃহস্পতিবার মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের ইনডোরে আবারও ঘাম ঝরানো শুরু করেছে বাংলাদেশ দলের এই তরুণ ডানহাতি পেসার। গত মার্চে টি২০ বিশ্বকাপের পরই বিসিবির স্থানীয় কোচ মাহবুব আলী জাকির তত্ত্বাবধানে শুরু হয়েছিল তার ফেরার লড়াই। এই কয়েক মাসে ভালোই উন্নতি হয়েছে বলে মনে করছেন তাসকিন।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘এখন পর্যন্ত আমার মোট ৯টি সেশন হয়েছে। তবে এর মধ্যে ছয়টি ছিল ‘ড্রিল’, সেশন আর বাকি তিনটি ছিল ‘হিটিং’ সেশন। এই নয় সেশনে আমার যথেষ্ট উন্নতি হয়েছে। এখনো পর্যন্ত আমার উন্নতি হয়েছে ৭০ শতাংশ। তবে পরের সেশনগুলো আরো কঠিন হতে থাকবে বলে মনে হচ্ছে।’

আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর দুটি টেস্ট এবং তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলার জন্য বাংলাদেশে আসার কথা রয়েছে ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের। তবে ইংলিশরা বাংলাদেশ সফরে আসার আগে বোলিং অ্যাকশন পরীক্ষার দেয়ার ইচ্ছে আছে তাসকিনের। বোলিং অ্যাকশন পরীক্ষা দেয়ার নির্দিষ্ট তারিখ না বললেও তাসকিনের লক্ষ্য, সেপ্টেম্বরের শুরুর দিকেই পরীক্ষা দিতে তাই সেভাবে নিজেকে তৈরি করছেন। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘কবে সবকিছু ঠিকমতো পারব বলা কঠিন। তবে সবকিছু নির্ভর করবে আমার উন্নতির ওপর। কোচেরা আছেন, বিসিবি যখন মনে করবে, তখন তারা আমাকে পাঠাবে। তবে আমার আত্মবিশ্বাসও বাড়ছে। যখন সব ঠিক মনে হবে তখন ওখানে যাব।’

পুনর্বাসন প্রক্রিয়ায় আগের মতো তাসকিনকে আর বাউন্সার করতে দেখা যাচ্ছে না। তাহলে কি বর্তমানে বাউন্সারের সঙ্গে আপোষ করলেন তিনি। তবে এ তা মানতে নারাজ তাসকিন। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘পেসের সঙ্গে কখনো কম্প্রোমাইজ করব না। কারণ আমি ফাস্ট বোলার। গতিই আমার মূল শক্তি। আল্লাহর রহমতে বড় কোনো সমস্যা নেই। আর কোচেরা যেভাবে নির্দেশনা দিয়েছেন ওভাবেই বর্তমানে কাজ করছি। আশা করছি সামনে বাউন্সওে কোনো সমস্যা থাকবে না।’

অবৈধ বোলিং অ্যাকশনের দায়ে টি২০ বিশ্বকাপের মাঝপথে দেশে ফিরে এসে তাসিকন খেলেছিলেন ঢাকা প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগে। বাংলাদেশের এই ঘরোয়া ক্রিকেট লিগে খেলার কারণে অনেক উপকৃত হয়েছেন বলে মনে করছেন তিনি।

এ বিষয়ে তরুণ এই ডানহাতি পেসার বলেন, ‘প্রিমিয়ার লিগের সময়ও অনেকগুলো ভিডিও সেশন করা হয়েছে। প্রিমিয়ার লিগের সময় পাঁচটা সেশন করা হয়েছে আমার। ওগুলো মাঠে কজে লাগিয়েছে। কোচেরা ভিডিও ফুটেজ চেক করে দেখেছে কোথায় আমার সমস্যা রয়েছে। প্রিমিয়ার লিগ খেলে আমার মনে হয় ভালোই হয়েছে। অনুশীলন আর ম্যাচ সেশনের মধ্যে অনেক পার্থক্য রয়েছে। তবে আমার বোলিয়ে যথেষ্ট উন্নতি হয়েছে।’

Googleplus Pint
Anik Sutradhar
Posts 7067
Post Views 477