MysmsBD.ComLogin Sign Up

কাবার ছবি সামনে রেখে নামাজ পড়া কি ঠিক?

In ইসলামিক শিক্ষা - Jul 21 at 9:49am
কাবার ছবি সামনে রেখে নামাজ পড়া কি ঠিক?

নামাজ, রোজা, হজ, জাকাত, পরিবার, সমাজসহ জীবনঘনিষ্ঠ ইসলামবিষয়ক প্রশ্নোত্তর অনুষ্ঠান ‘আপনার জিজ্ঞাসা’। জয়নুল আবেদীন আজাদের উপস্থাপনায় এনটিভির জনপ্রিয় এ অনুষ্ঠানে দ‍র্শকের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন বিশিষ্ট আলেম ড. মুহাম্মদ সাইফুল্লাহ।
রমজানের বিশেষ আপনার জিজ্ঞাসা অনুষ্ঠানের চতুর্থ পর্বে কাবা শরিফ বা মদিনার ছবি সামনে রেখে নামাজ পড়া সঠিক কি না, সে বিষয়ে ঢাকা থেকে টেলিফোনে জানতে চেয়েছেন সারোয়ার খান। অনুলিখনে ছিলেন জহুরা সুলতানা।

প্রশ্ন : তারাবির নামাজ শুরুর প্রাক্কালে দুজন যুবক আমার পাশে নামাজ পড়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। হঠাৎ তাঁরা জায়গা স্থানান্তর করে নিলেন। তাঁদের লক্ষ্য হলো সামনে মিম্বারের দুপাশে, যেখানে একদিকে মদিনা মনোয়ারার ছবি, অন্যদিকে কাবা শরিফের ছবি। তাঁদের ধারণা যে এ দুটি ছবি সামনে নিয়ে নামাজ পড়লে তাঁদের সওয়াব বেশি হবে। আমরা তো ইবাদত করি আল্লাহর, সেখানে আমরা তো কোনো মসজিদ বা কাবার ইবাদত করি না। এই ছবিগুলো আমাদের ইবাদতের ক্ষেত্রে ত্রুটি ঘটায়, বিভ্রান্তি ডেকে আনে। আমার এ দৃষ্টিভঙ্গি ঠিক আছে কি?
উত্তর : প্রথমত, এ দুই যুবক কেন স্থান পরিবর্তন করেছেন আপনি কীভাবে বুঝতে পেরেছেন? তাঁরা হয়তো স্থান পরিবর্তন করেছেন অন্য কোনো কারণে। আসল ব্যাপারটি হয়তো এ রকম না।

যাই হোক, যদি কাবা শরিফের ছবি বা মদিনার মসজিদের ছবি সত্যিকার অর্থে কারো সালাতের মনোযোগ নষ্ট করে থাকে, তাহলে এ কাজটি শুদ্ধ নয়। কিন্তু কাবা শরিফের ছবি, মসজিদে নববির ছবি কোথাও যদি ব্যবহার করা হয়ে থাকে, তাহলে এটি গর্হিত কাজ—ব্যাপারটি এমন নয়।

মুসল্লার মধ্যে যেমন কাবা শরিফের ছবি যদি থাকে এবং সেখানে যেহেতু তিনি সালাত আদায় করবেন, সিজদার দিকে তিনি দৃষ্টি দেবেন, সেখানে মনোযোগের বিষয়টি আসতে পারে এবং মনোযোগ নষ্ট হতে পারে। তাই মনোযোগ যদি কারো নষ্ট হয়, তাহলে এ কাজ তার জন্য শুদ্ধ হবে না।

তবে কাবা শরিফের যে ‌ছবি রয়েছে, এটি যদি কেউ শুধু ছবি হিসেবে ব্যবহার করে, তাহলে এটি গর্হিত বা নিষিদ্ধ কাজ হবে না। কারণ, আল্লাহর ঘরের মর্যাদা অবশ্যই রয়েছে এবং আমরা আল্লাহর ঘরেই আল্লাহতায়ালার ইবাদত করি।

কিন্তু আল্লাহতায়ালা এই ঘরের গুরুত্ব দিয়েছেন। আল্লাহ বলেন, ‘ফাল ইয়াবুদু রব্বা হাজাল বাইত (এই ঘরের প্রতিপালকের ইবাদত যেন তারা করে)।’
ঘরের কথার ইঙ্গিত কিন্তু এখানে দেওয়া আছে। ঘরটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ, যেহেতু আল্লাহ সুবাহানাতায়ালা গোটা মানবগোষ্ঠীর হেদায়েতের জন্য সর্বপ্রথম এই ঘর নির্মাণ করেছেন।

আমাদের এদিকেই মুখ ফেরানোর কথা বলা হয়েছে। তাই এর ছবি যদি কেউ রাখেন, তাহলে কোনো অসুবিধা নেই। কিন্তু ছবির কারণে যদি সালাতে কোনো ব্যাঘাত ঘটে, তাহলে এটি শুদ্ধ হবে না।

Googleplus Pint
Asifkhan Asif
Posts 1365
Post Views 658