MysmsBD.ComLogin Sign Up

ঈদের আগে সানবার্ন থেকে মুক্তির উপায়

In রূপচর্চা/বিউটি-টিপস - Jul 05 at 2:48pm
ঈদের আগে সানবার্ন থেকে মুক্তির উপায়

ঈদের আর বেশি দিন বাকি নেই। তাই ঈদ কে ঘিরে চলছে সবার তুমুল প্রস্তুতি। ঈদের সাজগোজ, ঘুরাঘুরি এসব নিয়ে আপনি যখন ব্যস্ত তখন যদি সানবার্নের দাগ আপনার সুন্দর মূহুর্তকে নষ্ট করতে চায় তবে কষ্ট না পেয়ে করতে পারেন ঘরোয়া কিছু টিপস অবলম্বন।

রোদে পোড়া দাগ থেকে মুক্তি জেনে নিতে পারেন ঘরোয়া কছু টিপস.....

নারিকেল তেল ও আপেল সাইডার ভিনেগার :
এই প্রক্রিয়াটির জন্য বিশুদ্ধ নারিকেল তেল, আপেল সাইডার ভিনেগার ও ১টি স্প্রে বোতল লাগবে। স্প্রে বোতলে ১ কাপ ঠান্ডা পানি নিয়ে এর সাথে এক কাপের এক চতুর্থাংশ পরিমাণ আপেল সাইডার ভিনেগার মেশান। বোতলটি ভালো করে ঝাঁকিয়ে নিন যাতে পানি ও আপেল সাইডার ভিনেগার ভালোভাবে মিশে যায়।

এরপর এই মিশ্রণটি সানবার্ন যেখানে হয়েছে ত্বকের সে স্থানে স্প্রে করুন। অতিরিক্ত ও গড়িয়ে পড়া পানি একটি তোয়ালে দিয়ে মুছে নিন। স্প্রে করার কিছুক্ষণের মধ্যেই আপনি সানবার্নের যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পাবেন। আপেল সাইডার ভিনেগার শুকিয়ে গেলে আক্রান্ত স্থানে কয়েক ফোঁটা নারিকেল তেল লাগিয়ে আস্তে আস্তে ঘষুন। নারিকেল তেল ত্বকে শোষিত হতে সময় লাগবে তাই আপনাকে আধা ঘন্টা বা এক ঘন্টা অপেক্ষা করতে হবে পুরোপুরি শুকিয়ে যাওয়ার জন্য।

তীব্র সানবার্নের ক্ষেত্রে এই পদ্ধতিটি ২-৩ বার করার প্রয়োজন হতে পারে। তাছাড়া আপনার ত্বকের সংবেদনশীলতার উপরও এর প্রভাব নির্ভর করে।

ব্ল্যাক টি :
ব্ল্যাক টি নিরাময় ক্ষমতা সম্পন্ন কারণ এতে প্রচুর ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে। একটি পাত্রে গরম পানি নিয়ে এর মাঝে কয়েকটি টি ব্যাগ চুবিয়ে রাখুন যতক্ষণ না পানি পুরোপুরি কালো হয়ে যায়। এই তরলটি স্বাভাবিক তাপমাত্রায় এলে এতে একটি পরিষ্কার কাপড় চুবিয়ে নিয়ে আক্রান্ত স্থানে লাগান। শুকিয়ে যাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।

এই পদ্ধতিটি এক বা দুই বার করলেই সানবার্ন ঠিক হয়ে যায়। সবচেয়ে ভালো কাজ হয় সানবার্ন হওয়ার সাথে সাথে পদ্ধতিটি ব্যবহার করলে। অনেক্ষণ যাবত ভিজিয়ে রাখা সম্ভব নাহলে ভেজা টি ব্যাগ সরাসরি আক্রান্ত স্থানে লাগাতে পারেন।

লেবুর রস, গোলাপ জল ও শশার প্যাক :
শশা ও লেবু প্রাকৃতিক ব্লিচিং এজেন্ট এবং সানবার্নের দাগ দূর করতে খুবই কার্যকরী। গোলাপজল ও শশা ত্বককে শীতলতা দান করে। ১ টেবিলচামচ লেবুর রস, ১ টেবিলচামচ গোলাপজল ও ১ টেবিলচামচ শশার রস নিয়ে ভালো করে মেশাতে হবে। এই মিশ্রণটিতে একটি সুতির কাপড় বা তুলা ভিজিয়ে নিয়ে আক্রান্ত স্থানে লাগান। ১০ মিনিট পর ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

মধু ও পেঁপের প্যাক :
পেঁপেতে ত্বকের জন্য উপকারি এনজাইম থাকে তাই দ্রুত সানবার্ন ঠিক করতে পারে। মধুর পুষ্টি সরবরাহকারী, নিরাময় দানকারী, ত্বক নরমকারী এবং ময়েশ্চারাইজিং বৈশিষ্ট্য আছে। আধাকাপ পাকা পেঁপে খোসা ফেলে ভাল করে থেঁতলে নিন। এর সাথে ১ টেবিল চামচ মধু মেশান। এই পেস্টটি আক্রান্ত স্থানে লাগিয়ে আধাঘন্টা রাখুন। তারপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

Googleplus Pint
Anik Sutradhar
Posts 7067
Post Views 196