MysmsBD.ComLogin Sign Up

ব্রেকআপের পর ছেলেরা বেশি কষ্ট পায় নাকি মেয়েরা?

In লাইফ স্টাইল - Jun 28 at 4:32pm
ব্রেকআপের পর ছেলেরা বেশি কষ্ট পায় নাকি মেয়েরা?

বর্তমানে বেশীর ভাগ রিলেশন শিপ এখন গড়ে উঠে একটা মোহে পড়ে, প্রথমে কেউই বুঝে না কি করছে বা কি হচ্ছে? পরে একটা রিলেশন শিপে গভীর ভাবে ঢুকে যাবার পর তাল ফিরে পায়, হায় হায় কি হয়ে গেল? আমার সাথে ওর তো অনেক অমিল, আমাদের ফ্যামিলি তো মেনে নিবে না, এই রিলেশন শিপের ভবিষ্যত নেই! এই সব চিন্তা ভাবনার ফলেই মূলত সমস্যার সূচনা হয়। এবং একটা সময় এইটা ব্রেক-আপ এ রূপ নেয়।

ব্রেক-আপ জিনিসটাও এখন অনেক অন্যরকম, ইটস লাইক ফাইট ; একজন হারবে একজন জিতবে। যে লুসার সে পস্তাবে আর যে জিতেছে সে অন্য একজনের হাত ধরে চলে যাবে যদিও দুইজনই লুসার কারণ রিলেশন শিপ টিকিয়ে রাখতে তারা ব্যর্থ হয়েছে।

সম্পর্ক এমন এক জিনিস যা শেষ হয়েও যেন হয় না। বোঝাপড়া, ভালবাসা তলানিতে এসে ঠেকলেও মানুষ আঁকড়ে ধরতে যায় ক্ষয়ে যাওয়া সম্পর্কের খড়কুটো। তাই বিচ্ছেদ বেশির ভাগ সময়ই হয় যন্ত্রণাদায়ক আবার অনেক ক্ষেত্রে অপ্রীতিকরও।

এসবের পরেও তবুও ব্রেক আপ শব্দের সাথে আমরা সকলেই এখন খুব পরিচিত, আর এই ব্রেক আপের পর ছেলেরা বেশি কষ্ট পায়, নাকি মেয়েরা? এমন প্রশ্নে প্রায়ই তর্ক-বিতর্ক করতে দেখা যায় অনেককেই। এবার হয়তো এই তর্কের অবসান ঘটাতে নেমে পড়েছিলেন বিজ্ঞানের গবেষকেরা। আর তাই তো গবেষনায় বের হয়ে এলো ছেলে নাকি মেয়ে বেশী কষ্ট পায় ব্রেক আপে সেটার উত্তর। আসুন তাহলে দেখি গবেষনা করে কি বের করে এনেছেন বিজ্ঞানীরা।

সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা যায়, ব্রেক আপের পর আপনার কষ্টটা বেশি হবে না কম, এটা নির্ভর করে আপনার লিঙ্গের ওপর। নারীরা ব্রেকআপের সময়ে বেশি কষ্ট পেয়ে থাকেন, এটা সত্যি। কিন্তু এই কষ্ট বেশিদিন বয়ে বেড়ান পুরুষেরা। অর্থাৎ পুরনো প্রেম ভুলতে ছেলেদের সময় লাগে বেশি।

বিংহ্যামটন ইউনিভার্সিটি এবং ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডন এর গবেষকেরা এই তথ্য দেন। গবেষণার জন্য তারা ৯৬ দেশের ৫,৭০৫ জন মানুষকে ব্রেক আপের কষ্ট নিয়ে প্রশ্ন করেন। এ ক্ষেত্রে ব্রেক আপের পরের মানসিক এবং শারীরিক কষ্টের মাত্রা ১ (কষ্ট নেই) থেকে ১০ (অসহনীয় কষ্ট) এর মাঝে জানতে চাওয়া হয়।

দেখা যায়, নারীরা মানসিক কষ্ট হিসেবে দুঃখ, বিষাদ, দুশ্চিন্তা, ভয় এবং মনোযোগের অভাব অনুভব করেন ব্রেক আপের পর। তাদের এই কষ্টের মাত্রা হয় গড়ে ৬.৮৪। এর তুলনায় পুরুষদের কষ্টের গর মাত্রা দেখা যায় ৬.৫৮। নারীরা ব্রেক আপের পর শারীরিক কিছু সমস্যাতেও ভোগেন, যেমন অনিদ্রা, খাদ্যে অরুচি এবং ওজনের পরিবর্তন। পুরুষদের তুলনায় এসব সমস্যা তাদের বেশি হতে দেখা যায়। নারীরা শারীরিক এই কষ্ট অনুভব করেন গড়ে ৪.২১ মাত্রায়, যেখানে পুরুষের ক্ষেত্রে এই মাত্রা গড়ে ৩.৭৫।

তবে বিভিন্ন অনুভুতি বা সমস্যা একই ধরণের দেখা যায় নারী ও পুরুষের মাঝে। যেমন, উভয়ের মাঝেই ভয় এবং অস্থিরতার চাইতে রাগ ও বিষাদ বেশি দেখা যায়। আবার প্যানিক অ্যাটাকের চাইতে ঘুমের সমস্যা ও ওজন পরিবর্তনের সমস্যা বেশি দেখা যায় নারীপুরুষ উভয়ের জীবনে।

তাহলে ব্রেক আপের পর নারীর কষ্ট বেশি হবার কারণটা কি? বিজ্ঞানের দৃষ্টিতে দেখলে বোঝা যায়, এর কারণ হলো নারীরা সাধারণত সম্পর্কটাকে অনেক বেশি মুল্য দিয়ে থাকেন। শুধু তাই নয়, এর পেছনে রয়েছে বিবর্তনের হাত। প্রাচীন সময়ে একটি সম্পর্কের ফলাফল কী হতো? কম সময়েই একটি প্রেমের সম্পর্ক থেকে সুত্রপাত হতো গর্ভধারণের এবং সেই নারীকেই সন্তান জন্মদান থেকে শুরু করে সব দায়িত্ব পালন করতে হতো। ওপর দিকে পুরুষটিকে তেমন কোনো দায় দায়িত্ব নিতে হতো না। এমন ঝুঁকি থাকার কারণেই পুরুষের তুলনায় নারী নিজের সঙ্গী বেছে নেওয়ার ক্ষেত্রে বেশি খুঁতখুঁতে হয়ে থাকেন। তারা এমন মানুষকেই বেছে নেন যারা অন্যদের তুলনায় উন্নত, অন্তত তাদের চোখে। আর এই উন্নত মানুষটির সাথে সম্পর্ক ভেঙ্গে যাবার পর কষ্টটা তার বেশি হবেই।

নারীদের তুলনায় পুরুষের কষ্টটা কম তীব্র হলেও তাদেরকে এই কষ্ট অনেকদিন ধরে তাড়া করতে পারে। এর পেছনেই বা বৈজ্ঞানিক কারণ কী? ব্রেক আপের পর পুরুষের বেশ কিছুটা সময় লাগে এটা বুঝতে যে তার আবার সঙ্গিনী খুঁজতে হবে এবং অন্যান্য পুরুষের সাথে এ বিষয়ে প্রতিযোগিতা করতে হবে তার। আর এটাও তাদের মনে হতে পারে, যে নারীকে তিনি হারিয়েছেন তাকে আর ফিরে পাবেন না। এসব কারণে ব্রেক আপের কষ্ট ভুলতে ছেলেরা বেশি সময় নেন। তথ্য সূত্র- ইন্টারনেট

Googleplus Pint
Mizu Ahmed
Posts 4142
Post Views 1002