MysmsBD.ComLogin Sign Up

ঈদে বাড়ি যাওয়ার ‘কায়দা-কানুন’

In লাইফ স্টাইল - Jun 26 at 10:39am
ঈদে বাড়ি যাওয়ার ‘কায়দা-কানুন’

আর কয়েক দিন পরই শুরু হবে ঈদুল ফিতর উপলক্ষে বাড়ি যাওয়ার লড়াই। ঢাকাসহ দেশের বড় সব শহর থেকে গ্রামের বাড়িতে প্রিয়জনদের সঙ্গে কয়েকদিনের সুখময় ছুটি কাটাতে ছুটতে হবে সবাইকে। এ ঝক্কি সহজে পার করার কিছু টিপস, আদব কায়দা জেনে নেওয়া উচিত আপনার। এসব মনে রাখলেই ঝামেলা এড়ানো সম্ভব।

টিকিট নিয়ে লড়াই নয়: বাসে বা ট্রেনে বাড়ি যাওয়ার জন্য হয়তো দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হবে আপনাকে। এক্ষেত্রে প্রচুর ধৈর্য্য পরীক্ষা দিতে হবে। লাইনে দাঁড়ানো অন্য মানুষদের সঙ্গে অযথা তর্ক বা রাগারাগি করা থেকে বিরত থাকুন।

বকশিশ দিন: বাড়ি থেকে বাস বা ট্রেন স্টেশনে পৌঁছে দেওয়া রিক্সাওয়ালা বা অটোরিক্সার ড্রাইভার আপনার কাছে ৫/১০ টাকা বেশি চাইবে ঈদ উপলক্ষে। এ নিয়ে তাদের সঙ্গে রাগারাগি না করে তাদের ন্যায্য ভাড়ার চেয়ে একটু বেশি টাকা বকশিশ হিসেবে দিন। এতে দু’পক্ষই আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে পারবেন।

পানি ও খাবার সাথে রাখুন: বাসে বা ট্রেনের লং জার্নিতে এই গরমে পানি ও খাবার সাথে রাখা উচিত। রোজা রেখে সন্ধ্যায় ইফতার করতে হলে পানি ও বাড়ির খাবারই হতে পারে আপনার জন্য সবচেয়ে স্বাস্থ্য সম্মত ও সাশ্রয়ী।

সবার সামনে ধূমপান বা খাওয়া নয়: যেহেতু রোজার মধ্যেই বাড়ি যেতে হবে আপনাকে, তাই যদি দিনের বেলা জার্নি করেন, তাহলে আপনি রোজা না রাখলেও অন্য যাত্রীর সামনে পানাহার করা উচিত নয়। এমনিতেই পাবলিক প্লেসে ধূমপান অনুচিত। বাস ও ট্রেনের অন্য যাত্রীদের সামনে তাই দিনে বা ইফতারের পরও ধূমপান থেকে বিরত থাকুন।

আচরণে সংযত হোন: জার্নিতে অতি মাত্রায় মোবাইল ফোনে কথা বলা অন্য যাত্রীদের জন্য বিরক্তিকর। তাই মোবাইল ফোনে অল্পতে কথা সারুন। বাস ও ট্রেনে একটা উদ্ভট আচরণ দেখা যায় বেশিরভাগ যাত্রীর মাঝে। আপনি পত্রিকা কিনলে আপনার হাত থেকে কোনও অনুমতি না নিয়েই পাশের যাত্রী হয়তো পত্রিকাটা কেড়ে নেবেন। এটা অভদ্রতা। এমনটা করা থেকে নিজেকে সংযত রাখুন। প্রয়োজনে অনুমতি নিয়ে পাশের যাত্রীর কাছ থকে পত্রিকাটি নিয়ে পড়ুন।

Googleplus Pint
Mizu Ahmed
Posts 4142
Post Views 94