MysmsBD.ComLogin Sign Up

রমজানে যে আমল অনেক গুরুত্বপূর্ণ

In ইসলামিক শিক্ষা - Jun 21 at 3:55pm
রমজানে যে আমল অনেক গুরুত্বপূর্ণ

সিয়াম সাধনার মাধ্যমে তাকওয়া অর্জন এবং কুরআন নাজিলের মাস রমজান। মুমিন বান্দা সিয়াম সাধনায় দিনের বেলায় পানাহার ও নিষিদ্ধ কাজ-কর্ম থেকে বিরত থাকে। উদ্দেশ্য একটাই- আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করা। সুতরাং সারাদিন শুধুমাত্র উপবাস থাকলেই হবে না বরং রোজায় সফলতা লাভে বিশেষ কিছু আমলে মনোযোগী হওয়া জরুরি। যা বাস্তবায়ন বান্দার রোজা পালন স্বার্থক হবে। সংক্ষেপে তা তুলে ধরা হলো-

১. রমজানে অনেক রোজাদার নিজের আমলের প্রচার করে থাকেন। যা ঠিক নয়। এসব প্রচারণা অনেক সময় অহংকার ও গর্ববোধের জন্ম দেয়। এমনকি কোনো কোনো সময় নিজের আমলকে নষ্ট করে দেয়। সুতরাং আমল-ইবাদাতের ক্ষেত্রে আল্লাহর ভয় কামনা এবং নিজের আমলের শুকরগোজারী করা জরুরি।

২. রমজানে মাসে ইফতারের সময় আজানের উত্তর দেয়া ‍গুরুত্বপূর্ণ আমল। যেহেতু সৎকর্মশীল বান্দাগণ অন্যান্য সময়ের চেয়ে রমজানে নেক আমলের প্রতি বিশেষ গুরুত্বারোপ করে থাকে। তাই ইফতার পরবর্তী সময়ে আজানের উত্তর দেয়ার প্রতি গুরুত্ব দেয়া একান্ত কর্তব্য।

৩. তারাবিহ নামাজ অনেক গুরুত্বপূর্ণ ইবাদাত। তারাবিহ মানেই হচ্ছে ধীরস্থিরভাবে নামাজ আদায় করা। সুতরাং তারাবিহ নামাজের রুকু, সিজদা, তাশাহহুদসহ নামাজের অন্যান্য আমলে তাড়াহুড়ো করা।

৪. অনেকেই খতম তারাবিতে দীর্ঘ সময় নামাজে না দাঁড়িয়ে রুকুর অপেক্ষায় বসে থাকে। যখনই ইমাম রুকুতে যায়, তখনই তাড়াহুড়ো করে রুকুতে শরিক হয়। এটা তাকওয়াবিরোধী। সুতরাং খতম তারাবিতে তিলাওয়াত শ্রবণও গুরুত্বপূর্ণ ইবাদাত। যা পরিহার করা উচিত নয়।

৫. আমাদের সমাজে সবচেয়ে অবহেলিত ইবাদাত হলো ই’তিকাফ। গ্রামের মসজিদগুলোতে ইফতার-সেহরি খাওয়ানোর শর্তে লোকদেরকে ই’তিকাফে বসানো হয়। প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমৃত্যু প্রতিবছর রমজানের শেষ দশকে ই’তিকাফে বসতেন। শবে কদরের মতো গুরুত্বপূর্ণ ইবাদাত রমজানের শেষ দশকে নিহিত রয়েছে। যার অন্বেষন করা একান্ত জরুরি।

৬. গরীব অসহায়দের মাঝে ফিতরা বিতরণ করা রমজানের গুরুত্বপূর্ণ ইবাদাত। বিশ্বনবি রমজানের শেষদিকে অসহায়দের মাঝে ফিতরা দানের নির্দেশ করেছেন। যাতে ঈদের আনন্দে গরীব-দুঃখীর মুখে হাসি ফুটে। কেননা এ ফিতরার ফলে রোজায় মানুষের অনর্থক কথা ও কাজের ভুল-ত্রুটির কাফফারা হয়ে যায়। সুতরাং ফিতরা আদায়ে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করা জরুরি।

সুতরাং আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে রমজানের রোজা ও ইবাদত-বন্দেগিকে সফল ও স্বার্থক করতে উপরোক্ত কাজগুলো যথাযথ আদায় করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

Googleplus Pint
Mizu Ahmed
Posts 3837
Post Views 157