MysmsBD.ComLogin Sign Up

ছুটিতে ঘুরে আসুন শিলং থেকে!

In দেখা হয় নাই - Jun 17 at 9:34pm
ছুটিতে ঘুরে আসুন শিলং থেকে!

মেঘালয়ের রাজধানী শিলং হল সবচেয়ে পরিচ্ছন্ন গন্তব্যস্থল, যা কাঠের তলবিশষ্ট ঘর ও খাসিয়া রমণীদের সমন্বয়ে গঠিত। শিলং শহরের বাইরে ও অভ্যন্তরে প্রচুর দর্শনীয় আকর্ষণ রয়েছে, যা প্রতিটি পর্বত প্রেমীদের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছে।

নিচে শিলং সম্পর্কে কিছু তথ্য দেয়া হল....

এলিফ্যান্ট জলপ্রপাত :
এলিফ্যান্ট জলপ্রপাত নামকরণ করা হয়েছে কারণ জলপ্রপাতটির নিকটে একটি হস্তী-আকৃতির পাথর রয়েছে।

যদিও এই প্রস্তরটি দীর্ঘদিন আগে একটি ভূমিকম্পে ধ্বংস হয়ে গিয়েছে, কিন্তু নামটি এখনও অটল রয়েছে।

জলপ্রপাতটি তিনটি ধাপে রয়েছে। তাদের মধ্যে সবচেয়ে ঐশ্বর্যশালী হল তৃতীয় নির্ঝরটি। নীচেরটি দেখতে হলে একজন দর্শককে বেশ কিছু শ্রেণীবদ্ধ ধাপ নীচে নামা প্রয়োজন। জলোচ্ছাসের শব্দ ও শীতল বায়ু এক স্মরণীয় অভিজ্ঞতা তৈরি করে।

শিলং পার্ক বা শিলং ভিউপয়েন্ট :
শিলং পরিভ্রমণে গেলে, এই অঞ্চলের সর্বোচ্চ কেন্দ্রে পাড়ি দেওয়াটা সর্বদাই একটি ভালো ধারণা। এখানকার টিলা ও উপত্যকাগুলির দৃশ্য খুবই উত্তেজনাপূর্ণ এবং এখানকার বাতাস লক্ষণীয়ভাবে খুবই সতেজ।

ওয়ার্ড’স লেক :
গল্ফ ক্ষেত্র থেকে পায়ে হাঁটা দূরত্বের মধ্যেই শোভামন্ডিত সেতু, নৌকাচালনার সুবিধা ও রাজহাঁসেদের সঙ্গে সৌন্দর্যবর্ধিত এই সুন্দর হ্রদটি আচ্ছাদিত রয়েছে।

লৈৎলাম গিরিখাত :
লৈৎলামের সুন্দর গিরিখাতটি এক চুড়ান্ত আবশ্যক পরিদর্শনযোগ্য স্থান। গিরিখাতটি, প্রধান শহর থেকে গাড়ির মাধ্যমে গেলে 45 মিনিট সময় লাগে। এটি রাসোং গ্রামের নীচের এক অত্যাশ্চর্য্য দৃশ্য উপলব্ধ করায়। লৈৎলাম গিরিখাতের চূড়া পিকনিকের জন্য মহান জায়গা। দুরুহ-মজ্জার ট্রেকার বা পদভ্রমণকারীরা, গ্রামের নীচে ট্রেক করার সুযোগ হাতছাড়া করতে চাইবেন না।

লেডি হাইদরি উদ্যান :
এই জাপানি শৈলীর উদ্যানটি, ছোট ছোট পুকুরের এক উদার সিঞ্চনে, প্রেমীদের স্বর্গোদ্যান হিসাবে গড়ে তুলেছে।

এই উদ্যানটিতে একটি ছোট চিড়িয়াখানা রয়েছে এবং বছরের যেকোনও সময় প্রচুর উৎসাহী শিশুরা খাঁচার মধ্যে থাকা আলস্যময় ভালুকদেরকে একদৃষ্টে দৃষ্টিপাত করে আছে দেখতে পাওয়া যায়। এছাড়াও উদ্যানটিতে একটি মিউজিয়াম ও যাদুঘর রয়েছে; যেখানে আপনি পাইথন (ময়াল সাপের) চর্ম, চিতা, হাতির মস্তকের খুলি ও বিরল জীবজন্তুর ছবি দেখতে পেতে পারেন।

অল সেন্টস চার্চ :বর্তমানে অল সেন্টস ক্যাথিড্রাল নামে অভিহিত, এই ভবনটি একশ বছরের চেয়েও পুরনো।

স্থানীয় খ্রীস্টান ধর্মাবলম্বীদের জমায়েতই শুধুমাত্র তাদের দৈনন্দিন প্রার্থনার জন্য এই গির্জায় ভিড় করে না, বরঞ্চ পরিদর্শন করতে আসা পর্যটকরাও তার ইতিহাস ও স্থাপত্যের সাক্ষী হতে এখানে ভিড় করে।

থাকার জায়গা :
পাইন সুইটস হোটেল, হোটেল নাইট ইন্ এবং শিলং ক্লাব গেস্টহাউস-এর, সাশ্রয়ী ভ্রমণার্থীদের মধ্যে বিশাল চাহিদা আছে। হোটেল সেন্টার পয়েন্ট এবং হোটেল আ্যলপাইন কন্টিনেন্ট্যাল হল শিলং-এর বেশ কিছু প্রসিদ্ধ মাঝারি মানের হোটেলের মধ্যে অন্যতম। হোটেল পোলো টাওয়ারস হল এই অঞ্চলের একমাত্র 4-তারা হোটেল।

শিলং দেখার সময় :
গ্রীষ্মকালে এখানকার তাপমাত্রার পরিমাণ হল 60 ডিগ্রী ফারেনহাইট 75 ডিগ্রী ফারেনহাইট। শীতকালে এই তাপমাত্রা 40 ডিগ্রী ফারেনহাইটেরও নীচে নেমে যেতে পারে। শিলং পর্যাপ্ত পরিমাণ বৃষ্টিপাত পায়। তবুও, শহরটি পার্বত্যময় হওয়া সত্ত্বেও এখানকার সড়কগুলি সু-পরিচর্যিত, জল দ্রুত নির্গমন হয়ে যায়।

এক পশলা বৃষ্টির পর, সড়কগুলি আরোও পরিষ্কার দেখায় ও বাতাবরণও আরোও সতেজ হয়ে যায়। বর্ষাকালে জলপ্রপাতগুলি খুব সুন্দর আকার ধারণ করে, যদিও, প্রবল ভারী বর্ষণের সময় এগুলি বেয়ে নিচে নামা বিপজ্জনক হতে পারে। কুয়াশাচ্ছন্ন পাহাড়-পর্বতগুলি এক আমন্ত্রণমূলক স্থানরূপে আহ্বান জানায়।

শিলং-এর উপর তথ্য :
উমিয়াম হ্রদের কাছাকাছি খুব বেশি হোটেল এবং খাবারের দোকান নেই। সুতরাং নিজেরাই নিজেদের খাবার নিয়ে যাওয়াটা বেশ ভালো ধারণা।

লৈৎলাম-এ পৌঁছে, আপনার গাড়ির চালকের কাছে স্মিট নামের জনপ্রিয় গ্রামটির কথা উল্লেখ করুন। লৈৎলাম, স্মিট থেকে খুব বেশি হলে ছয় মাইলের দূরত্ব।

লৈৎলাম-এ পরিভ্রমণের সময় সচরাচর জলের বোতল ও একটি লেবু সঙ্গে করে নিয়ে যান (অনেক সময় উচ্চতার কারণে আপনার বমি উদ্রেককর অনুভূতি হতে পারে)।

শহরটির সমস্ত প্রধান প্রধান কেন্দ্রগুলির বেশীরভাগই পরিদর্শন করার পূর্বে, যাওয়া-আসার ক্যাব অগ্রিম-বুকিং করে রাখুন, কেননা কাছাকাছি গ্রামগুলিতে ক্যাবগুলির উপলব্ধতা সম্পর্কে কিন্তু কোনও নিশ্চয়তা নেই।

Googleplus Pint
Noyon Khan
Posts 3254
Post Views 181