MysmsBD.ComLogin Sign Up

দুর্দান্ত জয়ে শেখ রাসেল কোয়ার্টার ফাইনালে

In ফুটবল দুনিয়া - Jun 16 at 11:08am
দুর্দান্ত জয়ে শেখ রাসেল কোয়ার্টার ফাইনালে

গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচটা শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্র জিতে গেছে প্রথমার্ধেই। তিন গোল করে দ্বিতীয়ার্ধ সুরক্ষিত রেখে বুধবার তারা ৩-০ গোলে মুক্তিযোদ্ধাকে হারিয়ে পৌঁছে গেছে ফেডারেশন কাপের কোয়ার্টার ফাইনালে। ৪ পয়েন্ট নিয়ে তারা ‘বি’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হিসেবে ১৮ জুন রহমতগঞ্জের মুখোমুখি হবে দ্বিতীয় কোয়ার্টার ফাইনালে। ৩ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ রানার্স আপ মুক্তিযোদ্ধা ২০ জুন মুখোমুখি হবে বিজেএমসির।

দিনের অন্য ম্যাচে ব্রাদার্স ২-১ গোলে শেখ জামাল ধানমণ্ডিকে হারিয়ে ৬ পয়েন্ট নিয়ে ‘সি’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হিসেবে ১৯ জুন শেষ কোয়ার্টার ফাইনাল খেলবে ঢাকা আবাহনীর সঙ্গে। নেপালি কোচ বালগোপালের ব্রাদার্সই একমাত্র দল যারা গ্রুপের দুটো ম্যাচই জিতেছে। ৩ পয়েন্ট নিয়ে রানার্স আপ শেখ জামাল ১৭ জুন প্রথম কোয়ার্টার ফাইনালে মুখোমুখি হবে আরামবাগের।

শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্রের কোয়ার্টার ফাইনালে ওঠার ম্যাচের হিসাবটা তুলনামূলক সহজই ছিল। মুক্তিযোদ্ধার সঙ্গে ড্র হলেই তাদের চলে। এ কারণেই কিনা ফিকরু তেফেরাকে একাদশের বাইরে রাখার সাহস দেখিয়েছেন কোচ। ইথিওপিয়ান স্ট্রাইকারের ফিটনেসেও ঘাটতি ছিল। সুযোগে মারুফুল হক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেছেন। ক্যামেরুনের ইকাঙ্গাকে সামনে তুলে নিয়ে মধ্যমাঠে শক্তি বাড়িয়ে ম্যাচ নিয়ন্ত্রণের কৌশল নিয়েছেন। তাতে খেলা ভালো হয়েছে, সমন্বয় বেড়েছে। তারই ফল ৪৩ মিনিটে তিন গোল করে রাসেল ম্যাচ জিতে নিয়েছে প্রথমার্ধে।

তিন গোলের প্রতিটিই হয়েছে চমৎকার। ২৯ মিনিটে বাঁ দিক থেকে মোনায়েম খানের বাড়ানো বলের বাউন্সে ডিফেন্ডার মানিক বিভ্রান্ত হলে ক্যামেরুনের ইকাঙ্গা বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে তা জালে পাঠিয়ে এগিয়ে নেন রাসেলকে। মিনিট তিনেক বাদে মিডফিল্ডার শাহেদুল আলমের ত্রিশগজী শটে পরাস্ত মুক্তিযোদ্ধার গোলরক্ষক নাইম। দেশি ফুটবলারের পায়ে এমন জোরালো শট কমই দেখা যায় ঢাকার মাঠে। ৩৮ মিনিটে স্কোরলাইনে নাম তুলে নেওয়ার সুযোগ পেয়েছিলেন মোনায়েম খান, কিন্তু তালগোল পাকিয়ে ফেলে ব্যর্থ। ৪৩ মিনিটে ডান দিক ধরে নাসির হানা দেন। ইকাঙ্গার পা ঘুরে যাওয়া বলটি পল এমিল দুর্দান্ত শটে জালে জড়িয়ে দিয়ে শেখ রাসেলকে নিশ্চিন্ত জায়গায় পৌঁছে দেন বিরতির আগে। দ্বিতীয়ার্ধে ম্যাচে ফেরার জন্য মরিয়া হয়ে খেলে মুক্তিযোদ্ধা সে রকম সুযোগ তৈরি করতে পারেনি। রাশেদুল আলম মনি ও আসাদুজ্জামান বাবলুর সংযোজনে যেন রাসেলের ডিফেন্সে কিছুটা স্থিতি ফিরেছে। নামে বড় না হলেও দুই ডিফেন্ডার বেশ আস্থার সঙ্গেই খেলেছেন। ৫৬ মিনিটে কঠিন কোণ থেকে মুক্তিযোদ্ধার নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড আহমেদ কোলো মুসার বাঁ পায়ের ক্ষিপ্র গতির শট দারুণ দক্ষতায় ফিরিয়ে দিয়েছেন রাসেল মাহমুদ লিটন। কাউন্টার অ্যাটাকে গোল ব্যবধান বাড়ানোর সুযোগ পেয়েও ইকাঙ্গা পারেননি। আগুয়ান গোলরক্ষকের মাথার ওপর দিয়ে তুলে দিলেও পোস্ট ঘেঁষে চলে যায় বাইরে।

শেখ জামাল-ব্রাদার্স ইউনিয়নের ম্যাচটি ছিল অনেকটা নিরুত্তাপ। এই ম্যাচের আগে দুই দল কোয়ার্টার ফাইনালে পৌঁছে যাওয়ায় ম্যাচ রেজাল্ট নিয়ে খুব একটা আগ্রহ ছিল না। দুই দলই অসংখ্য সুযোগ নষ্ট করে শেষ পর্যন্ত ৭১ মিনিটে ইয়াসিনের দূরপাল্লার শট ব্রাদার্সের জালে পৌঁছে গেলে শেখ জামাল এগিয়ে যায়। গোলটি যেন মৌচাকে ঢিল, এরপর ব্রাদার্সের অগাস্টিন ওয়ালসনের জোড়া গোলে বালগোপাল মহাজনের ব্রাদার্স ম্যাচ জিতে নেয়। তবে ৮২ মিনিটে হাইতিয়ান ওয়ালসনের ফ্রি-কিকটি গোলরক্ষক মোস্তাকের গ্রুিপ ফসকে দুই পায়ের ফাঁক দিয়ে জালে ঢোকে। ঠিক পরের মিনিটেই বাপ্পী হাসানের ক্রসে এলিটার কিংসলের শট প্রথম দফায় ডাইভ দিয়ে ঠেকিয়ে ইনজুরড হয়েছেন। তবে গোল ঠেকাতে পারেননি, বল জালে পাঠিয়ে দিয়েছেন অগাস্টিন ওয়ালসন। ২-১ গোলে ম্যাচ জেতার সুবাদে ব্রাদার্স কোয়ার্টার ফাইনালে মুখোমুখি হবে শক্তিশালী ঢাকা আবাহনীর।

Googleplus Pint
Jafar IqBal
Posts 1522
Post Views 123