MysmsBD.ComLogin Sign Up

টেন্ডুলকার-কোহলিরাও যা পারেননি

In ক্রিকেট দুনিয়া - Jun 12 at 3:24pm
টেন্ডুলকার-কোহলিরাও যা পারেননি

টেস্ট অভিষেকটা হয়েছিল একেবারে যাচ্ছেতাই। সেই এমসিজি টেস্টে প্রথম ইনিংসে করলেন ৩, পরের ইনিংসে ১! এবার রঙিন পোশাকের শুরুটা কিন্তু লোকেশ রাহুল করলেন রং ঝলমলে। অভিষেক ইনিংসেই সেঞ্চুরি। ওয়ানডে ইতিহাসে এর আগে যে কীর্তি ছিল মাত্র ১০ জনের। আর যে তালিকায় ভারতের সাবেক মহাতারকা শচীন টেন্ডুলকার নেই; নেই এখনকার মহাতারকা বিরাট কোহলিও।

টেস্ট অভিষেকে সেঞ্চুরির তালিকাটা অনেক লম্বা। কিন্তু ওয়ানডেতে এই কাজটা করতে পেরেছেন খুব কম জনই। কীর্তিটা এতটাই বিরল, ওয়ানডে খেলা চালুর পর ২০০৮ সাল পর্যন্ত ৩৭ বছরে ওয়ানডে অভিষেকে সেঞ্চুরি করেছিলেন মাত্র চারজন। গত আট বছরে এই কীর্তিটা বেশ কজন করেন। সাতজন।

কীর্তির শুরুটা হয়েছিল ডেনিস অ্যামিসকে দিয়ে। ইতিহাসের দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচ ছিল সেটি। আর তাতেই করেন সেঞ্চুরি। ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে সেদিন অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হয়েছিল ইংল্যান্ড। ডানহাতি ওপেনার অ্যামিস ১০৩ রানের দারুণ এক ইনিংস খেলেন। ১৮ ওয়ানডের ক্যারিয়ারে প্রায় ৪৮ গড়ে রান, সে সময়ের হিসাবে অনেক ভালো ৭২ দশমিক ৪৮ স্ট্রাইকরেট আর ৪ সেঞ্চুরি এক ফিফটির ক্যা​রিয়ার বলছে, ওয়ানডেতে সে সময় নিয়মিত খেলা হলে আরও ঝকঝকে একটা ক্যারিয়ারই হয়তো পেতেন অ্যামিস।

যেটা পেয়েছিলেন ডেসমন্ড হেইন্স। ওয়ানডেতে সাড়ে আট হাজারেরও বেশি রান তোলা হেইন্সও অভিষেক ওয়ানডেতে সেঞ্চুরি করেন। ১৯৭৮ সালে, অ্যান্টিগায় অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে। অভিষেক সেঞ্চুরির তৃতীয় উদাহরণটি অ্যান্ডি ফ্লাওয়ারের ব্যাটে। জিম্বাবুয়ের এই সাবেক ব্যাটসম্যান ১৯৯২ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সেঞ্চুরি করেছিলেন। শ্রীলঙ্কারই বিপক্ষে ১৯৯৫ সালে পাকিস্তানের সেলিম এলাহি অভিষেকে করেন ১০২।

এরপর সেই দীর্ঘ বিরতি। অবশেষে ২০০৯ সালে অকল্যান্ডে ​মার্টিন গাপটিল ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ​অভিষেক সেঞ্চুরি দিয়ে ১৪ বছর পর আবারও এই কীর্তির কথা মনে করিয়ে দেন। তখন থেকে এ পর্যন্ত কেবল ২০১২ সাল বাদে প্রতি বছরই একটি করে অভিষেক সেঞ্চুরির কীর্তি দেখে ওয়ানডে ক্রিকেট। ২০১০ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার কলিন ইনগ্রাম, ২০১১ সালে নিউজিল্যান্ডের রব নিকোল, ২০১৩ সালে ফিলিপ হিউজ, ২০১৪ সালে ইংল্যান্ডের মাইকেল লাম্ব এবং গত বছর হংকংয়ের মার্ক চ্যাপম্যান।

কাল হারারেতে দলের জয়ের জন্য দুই আর নিজের সেঞ্চুরির জন্য দরকার ছক্কা—এই সমীকরণ মিলিয়ে দিয়ে এই তালিকায় নাম লিখিয়েছেন রাহুল। এমন কীর্তিতে অন্তত তাঁর শুরুটা টেন্ডুলকার-কোহলিদের চেয়ে ভালো হলো। টেন্ডুলকার টানা দুটি শূন্য দিয়ে শুরু করেছিলেন ওয়ানডে ক্যারিয়ার। কোহলি অভিষেক ইনিংসে করেছিলেন ১২। রাহুল এখান থেকে আরও একটা বার্তা পেতে পারেন—অভিষেকে সেঞ্চুরি করাদের বেশির ভাগেরই ওয়ানডে ক্যারিয়ার পরের ততটা ঝলমলে কিন্তু হয়নি।

প্রভাত সব সময় দিনের সঠিক পূর্বাভাস নাও হতে পারে!

Googleplus Pint
Anik Sutradhar
Posts 7007
Post Views 519