MysmsBD.ComLogin Sign Up

বাঁচিয়ে দিল জ্বালানি তেল

In অর্থনীতি খবর - Jun 11 at 9:18am
বাঁচিয়ে দিল জ্বালানি তেল

রাষ্ট্রায়ত্ত খাতের যে প্রতিষ্ঠানকে টানা লোকসান দিয়ে সরকারের কাছ থেকে ভর্তুকি নিয়ে চলতে হতো, সেটি এখন বড় অঙ্কের মুনাফা অর্জন করছে। সর্বোচ্চ লভ্যাংশও জমা দিচ্ছে সরকারি কোষাগারে। এটি হলো বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি), যেটি মূলত বেঁচে গেছে আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দাম ব্যাপক হারে কমে যাওয়ায়।

চলতি ২০১৫-১৬ অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে বিপিসির নিট মুনাফা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১২ হাজার ১৮৬ কোটি টাকা, যা এর আগের গোটা বছরে (২০১৪-১৫) ছিল ৪ হাজার ১২৬ কোটি টাকা। তার আগে টানা পাঁচ বছর প্রতিষ্ঠানটি লোকসানে ছিল। এবারে প্রতিষ্ঠানটি সরকারি কোষাগারে লভ্যাংশ হিসেবে ইতিমধ্যে ৫ হাজার কোটি টাকা জমা দিয়েছে। এই অর্থ সার্বিকভাবে রাষ্ট্রায়ত্ত খাতের প্রতিষ্ঠানগুলোর দেওয়া মোট ৬ হাজার ৩০৬ কোটি টাকার লভ্যাংশের ৭৯ শতাংশের বেশি।

‘বাংলাদেশ অর্থনৈতিক সমীক্ষা ২০১৬’ শীর্ষক প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে। সরকারের এই বার্ষিক প্রতিবেদনে রাষ্ট্রমালিকানাধীন ৪৮টি করপোরেশন বা সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের সার্বিক আর্থিক কার্যক্রমের চিত্র তুলে ধরা হয়।

নিট মুনাফা ও লোকসান: অর্থনৈতিক সমীক্ষামতে, চলতি বছরে ৩৪টি রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন সংস্থা কমবেশি নিট মুনাফা অর্জনে সক্ষম হয়েছে। লোকসানে রয়েছে ১১টি প্রতিষ্ঠান ও সংস্থা। সব মিলিয়ে চলতি ২০১৫-১৬ অর্থবছরের এপ্রিল পর্যন্ত এ খাতে নিট মুনাফা হয়েছে ১১ হাজার ৭৮৬ কোটি টাকা, যা আগের অর্থবছরের ৪ হাজার ৩১৬ কোটি টাকা। বিপিসির পরে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৪ হাজার ৪৪ কোটি টাকার নিট মুনাফা করেছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। ৯২৬ কোটি টাকার নিট মুনাফা নিয়ে বাংলাদেশ তেল-গ্যাস ও খনিজসম্পদ করপোরেশন (বিওজিএমসি) তৃতীয় ও ৬৬২ কোটি টাকা নিয়ে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ (সিপিএ) চতুর্থ স্থানে রয়েছে। এ ছাড়া বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ ৪০৫ কোটি টাকা ও ঢাকা ওয়াসা ১৯৮ কোটি টাকার নিট মুনাফা অর্জন করেছে।

আলোচ্য সময়ে সর্বোচ্চ ৬ হাজার ২৩৩ কোটি ৪৯ লাখ টাকার নিট লোকসান দিয়েছে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (বিপিডিবি)। বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশনের (বিজেএমসি) ৫৮৮ কোটি ৫১ লাখ টাকা এবং বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশনের (বিএসএফআইসি) ৪৬২ কোটি টাকা লোকসান হয়েছে। এ ছাড়া পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (আরইবি) লোকসান দিয়েছে প্রায় ২৯৯ কোটি ৯৫ লাখ টাকা। অথচ গত বছরেও প্রতিষ্ঠানটির প্রকৃত মুনাফা ছিল ৫৮৪ কোটি ৪৬ লাখ টাকা।

বর্তমান অর্থবছরে নিট মুনাফা আগের চেয়ে কমেছে বিটিআরসি, বিওজিএমসি, আরইবি, টিসিবি (ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ) ও বিসিআইসির (বাংলাদেশ রসায়ন শিল্প করপোরেশন)।

অনুদান বা ভর্তুকি: অর্থনৈতিক সমীক্ষার তথ্য অনুযায়ী সরকার চলতি অর্থবছরের এপ্রিল পর্যন্ত ১১টি প্রতিষ্ঠানকে অনুদান বা ভর্তুকি বাবদ ১ হাজার ৮২৪ কোটি ৫৩ লাখ টাকা দিয়েছে। এর মধ্যে সর্বোচ্চ ৮৯১ কোটি ৪৫ লাখ টাকাই ভর্তুকি নিয়েছে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড (বিপিডিবি), যা আগের বছরে ছিল ৭৪৭ কোটি ৮৭ লাখ টাকা। অথচ আগের অর্থবছরে এ খাতে মোট অনুদান/ভর্তুকি দেওয়া হয়েছিল ১ হাজার ৩২৮ কোটি ৭৮ লাখ টাকা।

এ ছাড়া বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন (বিএডিসি) ৩৯৬ কোটি টাকা, বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) ২৭৪ কোটি ৮৮ লাখ টাকা, বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক) ১২৬ কোটি ৭৬ লাখ টাকা এবং বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশন (বিজেএমসি) ৭০ কোটি ৯৬ লাখ টাকার ভর্তুকি নিয়েছে।

লভ্যাংশ: রাষ্ট্রায়ত্ত খাতের ২৩টি প্রতিষ্ঠান ও করপোরেশন বা সংস্থা এবার সরকারি কোষাগারে লভ্যাংশ জমা দিতে সক্ষম হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠান গত এপ্রিল পর্যন্ত সরকারকে লভ্যাংশ বাবদ দিয়েছে ৬ হাজার ৩০৬ কোটি ২৪ লাখ টাকা। এর মধ্যে বিপিসির দেওয়া ৫ হাজার কোটি টাকা ছাড়া বিওজিএমসির ৯০০ কোটি টাকা, বিসিআইসি ১০০ কোটি টাকা, সিপিএ ১১০ কোটি টাকা এবং সিএএর ১০৫ কোটি টাকা উল্লেখযোগ্য। আগের ২০১৪-১৫ অর্থবছরে রাষ্ট্রায়ত্ত খাতের দেওয়া লভ্যাংশের পরিমাণ ছিল ১ হাজার ২৩৫ কোটি ২২ লাখ টাকা।

Googleplus Pint
Md Sobuj Ahmed
Posts 217
Post Views 338